নিজের ক্যারিয়ার নিয়ে সন্দিহান হয়ে যা বললেন তামিম

ডেস্ক রিপোর্টঃ খুলনা টাইটান্সের বিপক্ষে ১৮২ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে ৩ উইকেটের জয় পেয়েছে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। দলের জয়ে বড় অবদান রেখেছেন তামিম ইকবাল। খেলেছেন ৪২ বলে ৭৩ রানের ঝড়ো ইনিংস।

ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে তামিম জানিয়েছেন, গত ৭-৮ বছরে এতোটা ঘাবড়ে যাননি তিনি কোনো সময়। এই সময়ে তাঁর পাশে ছিলেন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের কোচ মোহাম্মদ সালাউদ্দিন ও সতীর্থ্য শহীদ আফ্রিদি। তারাই আত্মবিশ্বাস যুগিয়েছেন তামিমকে।

‘আমার মনে হয় না গত ৭-৮ বছরে আমার ক্রিকেট ক্যারিয়ারে কোনো খেলার আগে আমি এতোটা ঘাবড়ে গিয়েছিলাম। আমি স্যারকে (কোচ সালাউদ্দিন) বলছিলাম আমার অনেক ভয় লাগছে। স্যার তাঁর মতো আত্মবিশ্বাস দিয়েছে, আফ্রিদি তাঁর গল্পগুলো বলছিলো। তারাও বুঝছিল যে আমি স্বাভাবিক ছিলাম না। আমার মনে নেই এমন পরিস্থিতিতে আমি কখন পড়েছি। সত্যি কথা বলতে আমি অনেক অনেক ঘাবড়ে গিয়েছিলাম আজ।’

‘একজন ব্যাটসম্যান যখন অফ ফর্মে যায়। দুই তিনটি ইনিংসে তাঁর খারাপ ফর্ম নাও চলে যেতে পারে। আবার একটা ইনিংসেও খারাপ ফর্ম থেকে ফিরে আসতে পারে। এই সময়ে আমি মনে করব না আমি ফর্মে ফেরত এসে গেছি। ভালো একটি খেলা গেছে।’

আগের দুই ম্যাচে রানের খাতা খোলার আগে আউট হয়েছিলেন তামিম। খুলনার বিপক্ষে প্রথম ওভারে লাসিথ মালিঙ্গাকে কভার ড্রাইভে চার মেরে রানের খাতা খোলেন তিনি। তবে তৃতীয় ওভারে জুনায়েদ খানের বলে হুক করে মারা ছক্কাটাই তামিমের আত্মবিশ্বাস ফিরিয়েছে। একথা তামিম নিজেই জানিয়েছেন।

‘ছয়টার পর একটু আত্মবিশ্বাস পাওয়া শুরু করেছিলাম। প্রথম বাউন্ডারিটার পরও মনে হচ্ছিল ঠিক হয়ে গেছে সব। ওই ছয়টা মারার পর একটু সাহস আসা শুরু করল। এরপর যখন কয়েকটা বাউন্ডারি হয়ে যায় এরপর সিঙ্গেল হয়ে যায় তখন ভালো অনুভব করছিলাম।’

তামিম মনে করেন তিনি যে ধরণের ব্যাটসম্যান, তাঁর রান করাটাই বড় ব্যাপার। বলের হিসাব বাদ দিয়ে রানের হিসাবটাই মুখ্য তামিমের কাছে। তিনি জানিয়েছেন কত বলে কত রান করতে পেরেছেন সেটাই বড় বিষয়।

‘আমি যে ধরণের ব্যাটসম্যান আমার জন্য রানটা অনেক ব্যাপার। আমি কত বল খেলেছি এটা কোনো ব্যাপার না। আমি যদি ৫ বলে ২০ রান করি এটাই ব্যাপার। আমি কত বলে কত করতে পেরেছি এটাই ব্যাপার।’

Leave A Reply

Your email address will not be published.