৬৮ বছর বয়সে ক্রিকেট থেকে অবসর নিলেন তিনি!

একজন ক্রিকেটার কিংবা যে কোনো ইভেন্টের একজন খেলোয়াড় সর্বোচ্চ কতদিন খেলতে পারেন? ৪০ বছর, ৫০ বছর? ৫০ থেকে ৫২ বছর পর্যন্ত খেলা চালিয়ে যাওয়া খেলোয়াড়ের কথাও শোনা গেছে এর আগে। কিন্তু একজনের বয়স যদি ৬০ কিংবা ৬৫ পেরিয়ে যায়, তখন তো তার শেষ জীবনে চলে যাওয়ার কথা।

অথচ, ফিটনেস ধরে রেখে ৬৮তম জন্মদিন পর্যন্ত খেলা চালিয়ে গেলেন নিউজিল্যান্ডের ক্রিকেটার ইয়ান চ্যাটফিল্ড। ৬৮ বছর বয়সে এসে অবশেষে গত শনিবার ক্রিকেট থেকে অবসরের ঘোষণা দিলেন কিউই সাবেক বোলার ইয়ান।

‘নাইনাই এক্সপ্রেস’ হিসেবে নিউজিল্যান্ড ক্রিকেটে পরিচিতি ইয়ান চ্যাটফিল্ড। টানা পাঁচ দশক ধরে খেলে যাচ্ছেন ২২ গজে। দুই-তিন প্রজন্ম দেখে যাচ্ছিল খেলে যাচ্ছেন চ্যাটফিল্ড। তার সাথে খেলা শুরু করা ক্রিকেটারদের অনেকেই এখন হয়তো জীবন থেকে বিদায় নেয়ার প্রহর গুনছেন। কেউ হয়তো চলেও গেছেন। কিন্তু মাত্রই খেলা ছাড়ার ঘোষণা দিলেন এই প্রবীন ক্রিকেটার।

দীর্ঘ ক্যারিয়ারের শেষ ম্যাচটা চ্যাটফিল্ড খেললেন ওয়েলিংটনের স্থানীয় ক্লাব নাইনাই ওল্ড বয়েজের হয়ে নাইনাই পার্কে। জীবনের শেষ ম্যাচে জিতেছে তার দল। কিন্তু ‘নাইনাই এক্সপ্রেসে’র বোলিংটা শেষ ম্যাচে মোটেও ভালো হয়নি। ম্যাচ শেষেই তিনি সতীর্থদের জানান নিজের অবসরের তথ্যটি।

অবসরের ঘোষণা দিতে গিয়ে চ্যাটফিল্ড বলেন, ‘শুনতে এটা খুব সোজা বিষয়। কিন্তু আমি বলবো, ৬৮ বছর বয়স পর্যন্ত খেলে যাওয়া সোজা বিষয় ছিল না। এখন একটা স্ট্যান্ডার্ড পর্যন্ত এসে আমি বিদায় জানাচ্ছি। তবে, ৬৮ বছর বয়স পর্যন্ত পুরো ক্যারিয়ারে পুরোটা সময় এমন স্ট্যান্ডার্ড ছিল না। সুতরাং, আমি চিন্তা করেছি, এটাই সময় বিদায় বলে দেয়ার।’

শেষ ম্যাচ নিয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা দারুণ এক জয় পেয়েছি। শেষ ওভারে আমাদের প্রয়োজন ছিল ৭ রান। ২৩৬ রান তাড়া করতে নেমে দারুণ ব্যাটিং করেছি আমরা এবং শেষ বলে এসে জয় তুলে নিতে সক্ষম হয়েছি।’

১৯৬৮ সালে ক্রিকেট খেলা শুরু করার পর যখন তিনি খেলা ছাড়লেন তখন তার বয়স ৬৮ বছর। ১৯৭৫ সালে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে চ্যাটফিল্ডের। এরপর দীর্ঘ ১৪ বছর আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলেছেন তিনি। নিউজিল্যান্ডের হয়ে ৪৩টি টেস্ট ও ১১৪টি একদিনের ম্যাচে প্রতিনিধিত্ব করেছেন চ্যাটফিল্ড। ক্রিকেটের এই দুই ফরম্যাট মিলিয়ে নিয়েছেন ২৬৩টি উইকেট। জাতীয় দলের হয়ে ১৯৮৯ সালে শেষবার মাঠে নেমেছিলেন তিনি।

তবে জাতীয় দলের হয়ে না খেললেও ক্রিকেটকে নিজের জীবনের সঙ্গেই ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে রেখেছিলেন ইয়ান চ্যাটফিল্ড। নিয়মিত খেলে গেলেন নিউজিল্যান্ডের ঘরোয়া ক্রিকেটে। শেষ পর্যন্ত বয়সের কাছেই হারতে মানতে হলো অদম্য মানসিকতার এই ক্রিকেটারকে। যে কারণে শেষ পর্যন্ত ক্রিকেটকেই বিদায় জানাতে হলো তাকে।

জীবন শেষ ম্যাচ খেলার পর নিউজিল্যান্ডের এক সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘এত বছর ধরে নিজের যোগ্যতা বজায় রেখে খেলে গেলাম আমি। এমনকি এই৬৮ বছর বয়সেও। তবে আর খেলা চালিয়ে যাওয়া সম্ভব নয় আমার পক্ষে। তাই ক্রিকেটকে এবার বিদায় জানাচ্ছি।’

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট শুরুর আগেই ওয়েলিংটনের এই নাইনাই ক্লাবের মাঠে ১৯৬৮ সালের ফেব্রুয়ারিতে স্থানীয় ক্রিকেটে অভিষেক হয় তার। সেই মাঠে দাঁড়িয়েই ক্রিকেটকে বিদায় জানালেন তিনি।

Leave A Reply

Your email address will not be published.